Header Ads

অতিরিক্ত ভাড়া না পেলে এ‌্যাম্বুলেন্স খারাপ আমি অসুস্থ্য যেতে পারব না


নড়াইল জেলার লোহাগড়া উপজেলা স্বাস্থ‌্য কমপ্লেক্স এর এ‌্যাম্বুলেন্স ড্রাইভার  মােঃ খায়রুল ইসলাম  এর উপর নানা অভিযোগ করেছেন এলাকাবাসী। অভিযোগের বিষয়টি এলাকার সাধারন জনগনের পক্ষ থেকে মহাপরিচালক স্বাস্থ‌্য অদিদপ্তর ঢাকায় লিখিত আকারে পাঠিয়েছেন এলকাবাসী।  অভিযোগ পত্রটি থেকে জানা যায়-
সবিনয় নিবেদন এই যে , আমরা নিম্ন স্বাক্ষরকারীগন লােহাগড়া উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেব্ধ এর আশে পাশের স্থায়ী বাসিন্দা । আমাদের দেখা ও জানা মতে এ্যাম্বুলেন্স এর ড্রাইভার মােঃ খায়রুল ইসলাম অসহায় ও গরীব রােগীদের নিকট থেকে সরকার নির্ধারিত ভাড়ার চেয়ে অতিরিক্ত ভাড়া নিয়ে থাকেন এবং যাদের থেকে অতিরিক্ত ভাড়া নিতে পারবে না তাদেরকে বলে গাড়ী খারাপ বা আমি অসুস্থ্য যেতে পারব না । সরকারী এ্যাম্বুলেন্স এর নিয়ম অনুযায়ী রােগী বহন করলে ভাড়ার বিপরীতে রশিদ দেওয়ার কথা থাকলে ও আজ পর্যন্ত কোন রােগীকে বা রােগীর লােককে রশিদ দেয় নাই । সে গাড়ী এল , পিজিতে চালায় এবং পেট্রোল বিল করে । অত্র হাসপাতালের পুরাতন দুইটি গাড়ীর বিভিন্ন যন্ত্রাংশ মােঃ খায়রুল ইসলাম খুলিয়া বেচিয়া অন্যের উপর । দোষ চাপানাের চেষ্টা করে ।
হাসপাতালের অন্যান্য কর্মচারীরা স্বাক্ষী দেওয়ার কারনে সে নিজেই দোষী সাব্যস্ত হওয়ায় তাহার বিরুদ্ধে থানায় অভিযােগ দায়ের হয়েছিল যাহার স্বাক্ষী হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ । বর্তমানে সে যে , গাড়ীটি চালায় তাহার নুতন ইঞ্জিন খুলিয়া বিক্রি করিয়া পুরাতন একটি ইঞ্জিন লাগাইয়া চালাইতেছে । বর্তমানে তাহার ব্যক্তিগত বেনামা ২ ( দুইটি ) গাড়ী রহিয়াছে । যাহা জঙ্গীবাদের কারনে বাংলাদেশ সরকার আল – মারকাজুল ইসলাম বাংলাদেশ এর ৩১ টি গাড়ী বাজেয়াপ্ত করিয়াছিল তাহার মধ্যে যাহার নং – ঢাকা – মেট্রো – শ – ১১ – ০১৮২ ও ঢাকা – মেট্রো – শ – ১১ – ০৫৭৬ গাড়ী দুইটি তাহার মাধ্যমে লােহাগড়া উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এর বাহিরে অবস্থান করে এবং ভাড়া খাটে । হাসপাতালের চাকরীর আগে সে আল – মারকাজল ইস এর এ্যাম্বুলেন্স ড্রাইভার ছিল । সেই সুবাদে আল – মারকাজুল ইসলাম বাংলাদেশ এর লক্ষীপাশা ও ঢাকার কার্যালয়ে অবস্থান । করত । সে প্রাইসময় সরকারী গাড়ী বিভিন্ন অজুহাতে বসিয়ে রেখে তাহার বেনামা ব্যক্তিগত গাড়ীতে রােগী পাঠায় আবার কখন ও সরকারী গাড়ীতে রােগী ওঠাইয়া আধা কিঃ মিঃ অথবা তাহার বাড়ীর নিকট যাইয়া তাহার বেনামা ব্যাক্তিগত গাড়িতে রােগী ওঠাইয়া দেয় ।
আবার কোন কোন সময়ে সরকারী গাড়ীতে রােগী নিয়ে নড়াইল সদর হাসপাতালে রােগী নামাতাে আর বেনামা ব্যক্তিগত গাড়ীতে রােগীর নাম ঠিকানা ব্যবহার করে যশাের / খুলনার তেলের বিল তােলে । এ্যাম্বুলেন্স ড্রাইভার এপর্যন্ত অনেক অনিয়ম ও দুর্নীতি করিয়াছে । এবং সে বলে আমি সবাইকে ভাগ দিয়ে থাকি কেউ আমার কিছুই করতে পারবে না । এছাড়াও সে একজন জঙ্গী সহযােগী । লােকমুখে শোনাযায় জঙ্গী আবু জান্দাল তাহার নিকট ৬ ( ছয় ) মাস যাবৎ তাহার হাসপাতালের বাসায় ছিল । সে প্রায়ই সময় প্রধান মন্ত্রীকে কুটুক্তি সহ ও সরকারকে গালী গালাজ ও সরকার বিরােধী কথা বার্তা বলে । কেহ তাকে কিছু বলতে গেলে তাকে তার ভাড়া করা মস্তান দিয়ে হুমকি ও ভয় ভীতি প্রদান করে । তাহার অন্যায় , অনিয়ম , অসৎ ব্যবহার , স্বেচ্ছাচারিতা ও দুর্নীতিতে সাধারন মানুষ অতিষ্ঠ । |

অতএব জনাম সমীপে আকুল আবেদন এই যে , তাহার বিরুদ্ধে আনীত অভিযােগ যাচাই করে তদন্ত পূর্বক তাহার বিরুদ্ধে শাস্তির ব্যবস্থা গ্রহন করে তাহাকে অন্যত্র বদলি করিয়া এলাকার সাধারন জনগনের উপকার করিতে মর্জি হয় । ।
অভিযোগের ব‌্যাপারে জানতে চেয়ে এ‌্যাম্বুলেন্স ড্রাইভার  মােঃ খায়রুল ইসলাম এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তার কোন বক্তব‌্য পাওয়া যায়নি।


Blogger দ্বারা পরিচালিত.