Header Ads

‘স্যার’ না বলায় সাংবাদিকদের বের করে দিলেন কৃষি কর্মকর্তা


যশোরের অভয়নগর উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তাকে ‘স্যার’ না বলে ‘ভাই’ বলায় ক্ষিপ্ত হয়ে লাঞ্ছিত করে তার অফিস থেকে ৪ সাংবাদিককে বের করে দিয়েছেন। ওই কর্মকর্তা তখন দুই মহিলার সঙ্গে খোশগল্প করছিলেন।
সোমবার সকালে উপজেলা কৃষি অফিসে এই ঘটনা ঘটে। ওই কর্মকর্তার নাম আব্দুস সোবহান। এ ঘটনায় অভয়নগরে সাংবাদিকদের মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।
সাংবাদিক আতিয়ার রহমান বলেন, অভয়নগর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তাসহ অনেক কর্মকর্তা নিয়মিত অফিসে আসেন না। রবিবার সকাল ১০টায় ওই অফিসে গিয়ে কৃষি কর্মকর্তাকে না পেয়ে কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা আব্দুস সোবহানের অফিসে যাই। সেখানে গিয়ে দেখি দুইজন মহিলাকে নিয়ে খোশগল্প করছেন তিনি। আমাকে দেখেই চমকে ওঠেন তিনি। আমি তাকে ভাই বলে কৃষি কর্মকর্তা কোথায় আছেন জানতে গেলে ক্ষিপ্ত হয়ে আমার দিকে তেড়ে আসেন। এরপর অফিসের পিওনকে ডাকাডাকি করে আমাকে বের করে দিতে বলেন। এসময় পাশে থাকা সাংবাদিক রিপানুর ইসলাম এগিয়ে গেলে তাকেও লাঞ্ছিত করে বের করে দেন।
এ ঘটনার পর দৈনিক জনতার অভয়নগর প্রতিনিধি কামরুল ইসলাম ও দৈনিক খুলনা টাইমসের অভয়নগর প্রতিনিধি শেখ জাকারিয়া রহমান বিষয়টি জানতে ওই কর্মকর্তার নিকট যেয়ে ভাই বললে তাদেরকেও অফিস থেকে বের দেন। বলেন, ‘আমি একজন বিসিএস ক্যাডার, আমার সঙ্গে কিভাবে কথা বলতে হয় জানেন না?’
সাংবাদিক রিপানুর ইসলাম বলেন, উপজেলা কৃষি অফিসের আব্দুস সোবহানের বিরুদ্ধে অভিযোগ আছে, তিনি প্রায়ই তার অফিসে নারীদের নিয়ে খোশগল্পে মেতে থাকেন। সোমবার আমিও সংবাদ সংগ্রহে গিয়েছিলাম। সেখানে যেয়ে আতিয়ার ভাইয়ের ঘটনা জানতে গেলে আমার সঙ্গেও খারাপ আচরণ করেন।
এ ব্যাপারে উপজেলা অভয়নগর উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা আব্দুস সোবহানের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, উল্লেখিত ৪ সাংবাদিকদের সঙ্গে যে ঘটনার কথা প্রচার হচ্ছে তা সঠিক নয়। বরং কিছু দিন আগে ভ্রাম্যমাণ আদালত কর্তৃক একজন সাংবাদিকের ভেজাল সার আটকের ঘটনায় তিনি সাংবাদিক সমাজকে ব্যবহার করে আমাকে হয়রানি করছেন।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার বিষয়ে জানতে চাইলে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর যশোরের উপপরিচালক মো. এমদাদ হোসেন শেখ বলেন, অভয়নগর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা গোলাম সামদানী ৩ দিনের ছুটিতে রয়েছেন। আপনারা একটু মীমাংসা করে নেন।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা গোলাম সামদানী বলেছেন, তিনি ছুটিতে রয়েছেন, কয়েকদিন পূর্বে ভ্রাম্যমাণ আদালত কর্তৃক একজন সাংবাদিক ও কয়েক ব্যবসায়ীর ভেজাল সার আটকের ঘটনায় বর্তমান ঘটনাগুলির সম্পর্ক রয়েছে বলে মনে করছি।
Blogger দ্বারা পরিচালিত.